নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা: ঐতিহাসিক পরিবর্ধন

নারীর প্রতি সহিংসতা অনেক আগে থেকেই। কেবল প্রাচীন বিশ্বে গড়ে ওঠা কিছু মাতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যতীত, নারী ও মেয়েদের ভাগ্য এবং জীবন নিয়ন্ত্রিত হয় পুরুষদের নেতৃত্বে পরিচালিত সমাজ দ্বারা। ‘পিটার ফ্যামিলিয়াস’ ধারণাটি রোমান সভ্যতায় শুরু হয়েছিল, যেখানে পরিবারের প্রধানদের অধিকার ছিল তাদের কন্যা বা স্ত্রী বা নারী আত্মীয়দের হত্যা করার যদি তারা , তাদের যৌনতা, তাদের পছন্দসই সঙ্গী বা প্রথার অনমুমোদন না দেয়। এ অবস্থা শুধুমাত্র ১৮০০-এর দশকের মাঝামাঝি পর্যন্ত ছিল যখন ভোটাধিকার আন্দোলন গড়ে ওঠে এবং পরবর্তী শতাব্দীতে মহিলাদের ছোট ছোট বিজয় অর্জনে সহায়তা করে , যেমন বিবাহিত মহিলাদের জন্য সম্পত্তির অধিকার, ভোট এবং গাড়ি চালানোর অধিকার । এখানে কানাডায়ও মহিলাদেরকে ততক্ষন পর্যন্ত ব্যক্তি হিসাবেও বিবেচনা করেনি , যতক্ষণ না ১৯২৮ সালের বিখ্যাত ঘটনা যা নারীদের রাজনীতিতে এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে অংশগ্রহণের অনমুতি দেয় । এটি শুধু ১৯ শতকের শেষভাগ পর্যন্ত নয়, ৬০ এবং ৭০ এর দশকের শেষের দিকে যখন এই বিজয়গুলি উত্তর আমেরিকায় নারীমুক্তি এবং নারীবাদী আন্দোলন নামে পরিচিত।


নারীর ‘বিশুদ্ধতা’ রক্ষার যে ধারণা তা পরবর্তী বহু যুগে এবং সমাজে পুনরাবৃত্ত ও শক্তিশালী করা হয়েছে । যেখানে মহিলারা ছিলেন শুধু আনুগত্য, অনসুরণ এবং সেবা করার জন্য। তারা পরিবার এবং বংশপরম্পরায় রাজনৈতিক
সংযোগ হিসাবে ও ভূমিকা পালন করতে পারে , বিবাহের মাধ্যমে বিনিময় ও আরো অন্য মাধ্যমে বিনিময় হিসেবে ব্যবহার হয়।
টিভি সিরিজ ম্যাড ম্যান ৬০-এর প্রজন্মের চরিত্র ‘বে টি ড্রে পার’ আবির্ভাবের সাথে মর্তিূর্তির মত যন্ত্রমানব নারী দেখতে
নিখুতঁ, যারা রান্না এবং পরিষ্কারের কাজে ব্যস্ত থাকত, তারা হঠাৎ করেই আওয়াজ তুলেন, কেননা তারা হঠাৎ বঝুতে
পেরেছিলেন যে ঠিক পুরুষদের মত তাদেরও ক্যারিয়ার থাকতে পারে ।
স্বাগত ৭০ দশক এবং নারী আন্দোলন, যখন হঠাৎ করেই নারী ও তাদের বিষয়গুলো খবরে আসতে শুরু হল । এর মধ্যে
সহিংসতার দিকগুলি যেমন উঠে আসতে শুরু করল তেমনি প্রকাশিত হতে থাকল পরিবার, জীবন সঙ্গী, সম্প্রদায় এবং
সমাজ দ্বারা নারীর জন্য নির্ধারিত সীমাবদ্ধতা এবং নিয়ন্ত্রণগুলি । এই আন্দোলন মূলত নারী-পুরুষের বৈষম্যের ইস্যুতে ক্রমবর্ধমান সচেতনতার ফলাফল এবং অবমাননাকর সম্পর্কের ক্ষেত্রে নারীদের অধিকার সুরক্ষায় একটি আশ্রয়স্থলের ক্রমবিকাশ ঘটায়। সেই সময়ে জনগণের নীতি ও মহিলাদে র ভোটাধিকার প্রয়োগের নতুন অধ্যায় দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল।
দাম্পত্য সহিংসতার কারণ বিষয়ে প্রথম তদন্তের সময় নারীদের নিরাপত্তা প্রদানের প্রয়োজনীয়তা অনভুূত হয় এবং ১৯৭০ সালে উত্তর আমেরিকায় নারী অধিকার এবং আশ্রয় আন্দোলনের উত্থানের সাথেই তা নিশ্চিত করা হয়। যেমন, বিশ্বব্যাপী ফেডারেল বা প্রাদেশিক স্তরে জনগণে র নীতির সমস্ত বড় পরিবর্তন ও সংশোধনের মধ্যেই নারী আন্দোলন স্পষ্ট হয়েছে ।
জনগণের নীতি অনেক ক্ষেত্রে দাম্পত্য সহিংসতার সাথে যুক্ত, যেমন ন্যায়বিচার, জননিরাপত্তা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক
পরিষেবা, অভিবাসন ইত্যাদি ।


১৯৮০ এর দশকের গোড়ার দিকে , স্বামী-স্ত্রী নির্যাতনের মামলাগুলির প্রতি ফৌজদারি বিচার ব্যবস্থার প্রতিক্রিয়া এবং
পরিবারের ব্যক্তি গত সীমার বাইরে নিয়ে এটিকে জনসাধারণের উদ্বেগের বিষয় করে তুলবার ফলে এই ধরনের
অপব্যবহারের অপরাধীকরণের বিষয়ে ক্রমবর্ধমান সচেতনতা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে । এই দশকটি ভিকটিমদের পরিষেবা,
স্বপক্ষে গ্রেপ্তার নীতি এবং অংশীদার সহিংসতা মোকাবেলাকারী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল তৈরির দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল; যার সবকটিই ডিজাইন করা হয়েছিল ভুক্তভোগীদের রক্ষায় এবং অপব্যবহারকারীদের তাদের কর্মের জন্য দায়ী করার জন্য ।
কিছু বিষয় যা আমরা আজকাল মঞ্জর করে নিই তবে প্রাথমিকভাবে সুপারি শ করার সময় উপহাস করা হয়েছিল যেমন পুলিশ জড়িত থাকা এবং অভিযোগ জমা দেওয়া । ৮ই জলুাই, ১৯৮২, ৩৯ বছর আগে , হাউস অফ কমন্স সর্বসম্মতিক্রমে একটি প্রস্তাব গৃহীত হয়েছিল যা সমস্ত কানাডিয়ান পুলিশ বাহিনীকে উৎসাহিত করেছিল, নিয়মিতভাবে স্ত্রী মারধরকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করতে , যেমন “যেকোন সাধারণ আক্রমণের ক্ষেত্রেও”; তবে প্রথমে এটিকে “হাসি এবং ঠাট্টা” দিয়ে স্বাগত জানানো হয়েছিল। কেননা পুলিশ প্রশিক্ষণ সাধারণত একজন মারধরকারীকে গ্রেপ্তারের বিরুদ্ধে নির্দে শ দেয়- যদি না সে প্রকৃতপক্ষে শিকারকে আঘাত করতে দেখা যায় বা যতক্ষণ না শিকারে র আঘাত “একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক সেলাই করার জন্য যথেষ্ট গুরুতর” হয়।
(হাউস অফ কমন্সে র স্বাস্থ্য, কল্যাণ ও সামাজি ক বিষয়ক স্থায়ী কমি টি, ”পরিবারে সহিংসতার প্রতিবেদন—স্ত্রীর আঘাত”
মে ১৯৮২,)
১৯৮১ সালের মে মাসে , লন্ডন পুলিশ ডিপার্টমেন্ট হল প্রথম কানাডিয়ান পুলিশ এজেন্সি যারা স্বামী-স্ত্রীর আক্রমণের জন্য
অংশীদারদের চার্জ করে , কিন্তু পুলিশ এবং ক্রাউন প্রসিকিউটরদের আনষ্ঠানিক নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছিল ১৯৮৬ সালে , যা নিশ্চিত করে যে স্বামী-স্ত্রীর আক্রমণকে একটি অপরাধমলূক বিষয় হিসাবে বিবেচনা করা হয়।
তাহলে ১৯৮০ এর দশক থেকে আসলেই কি পরিবর্তন হয়েছে ? দূভাগ্যবশত শুধুমাত্র তারিখ। আমরা কিভাবে সেটি জানি
বা বলছি ; কারণ পরি সংখ্যান একই থাকে । ৮০’-দশকে প্রভাবিত হওয়া সবচেয়ে বেশী বয়সের সীমা ১৯-২৫ বছর বয়সের মধ্যে, প্রতি অল্পবয়সী মহিলাদের মধ্যে একজন; যা এখনও একই। ৮০-এর দশকে বড় ধরনের সংস্কারের একচল্লিশ বছর পরেও, এই ডিজিটাল যুগে নারীর প্রতি এমনই সহিংসতা কীভাবে অনভুূত হয় ? এটি পুনরাবৃত্তি করা হচ্ছে , অনবরত, বিরামহীনভাবেই বৃদ্ধি পাচ্ছে । এর কারণ, নারীদের চিরাচরিত ভূমিকা এবং চলমান লিঙ্গ বৈষম্য সম্পর্কে ধারণার সামান্য
পরিবর্তন। এটি দাম্পত্য সহিংসতা হ্রাস করার সাথে জড়িত এবং সহিংসতার লক্ষণ ও পরিণতির সাথেও জড়িত। একটি
সাম্প্রতিক ঘটনা যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে হতবাক করেছে তা হল বেটিটো মামলা যেখানে যুবতীকে খুন করা হয়েছিল এবং
খুনি একজন যুবক যে পরে আত্মহত্যা করেছিল। এটি দাম্পত্য সহিংসতা মামলার একটি নিখুতঁ উদাহরণ।
কানাডায় সামাজিক আইন এখানে পরিস্থিতি কীভাবে উন্নত হয়েছে ? আমাদের প্রাদেশিক কিছু কৌশল আছে , পৃথক ট্রাইব্যুনাল এবং বিশেষায়িত আইন রয়েছে । কিছু কিছু কমিটি আছে যারা দাম্পত্য হত্যাকাণ্ডের কারণ বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করে যাতে তারা ঘটনার একটি নমুনা বঝুতে পারে ; যাতে এই নমুনার সাহায্যে আমরা একটি প্রতিরোধক কৌশল বাস্তবায়ন করতে পারি ।
দাম্পত্য সহিংসতার বিষয়ে প্রথম নীতিটি ছিল কুইবেকে ১৯৮৬ সালে । ১৯৯৫ সালে এটি হয়ে ওঠে “politique en
matiere d ‘intervention en violence conjugale’’, একটি নীতি যা প্রতি পাঁচ বছর পর পর পুনঃনবায়ন করা হয়।
প্রাথমিকভাবে এতে ৯টি বিভাগ জড়িত ছিল; কিন্তু ২০১৮-২০২৩ গার্হস্থ্য সহিংসতা সংক্রান্ত সরকারি কর্ম পরিকল্পনা ২০টি বিভাগ এবং সরকারী সংস্থা দ্বারা বাস্তবায়িত হবে ৷
নীতির কিছু দিক নির্দেশক নীতি হল এই ধরনের অপব্যবহারের জন্য সহনশীলতা, লিঙ্গ সমতার প্রচার, এই ধরনের অপব্যবহারকে অপরাধীকরণে র প্রয়োজনীয়তা, ক্ষতিগ্রস্তদের নিরাপত্তা প্রদানের প্রয়োজনীয়তা এবং ভুক্তভোগীদের স্বায়ত্তশাসনের সম্মান।
এই নীতিটি তিনটি প্রধান মক্কেল, ভুক্তভোগী, শিশু এবং নির্যাতকদের স্বীকৃতি দেয় এবং বিদ্যমান আইনী ব্যবস্থার
সরলীকরণ এবং মানবীকরণের সমর্থন করে , যা ভিকটিমদের দ্বারা প্রকাশ করা সহজ করে তোলে । এটি অভিবাসী
মহিলাদের, বিশেষ করে যারা ভাষা বলতে পারে না, শারীরিকভাবে দূর্বল মহিলা বা প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাসকারী যারা দূর্বল গ্রাহকদের জন্য বিশেষায়িত পরিষেবা এবং পদ্ধতির পক্ষেও সমর্থন করে ৷
যদিও অন্য অনেক ধরনের অপব্যবহার বাদ দিয়ে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে , দাম্পত্য সহিংসতার বিষয়টি কানাডার ফৌজদারি
আইনের কিছু ধারা প্রয়োগের মাধ্যমে মৃত্যু হুমকি এবং যৌন ও শারীরিক সহিংসতার জন্য শাস্তিযোগ্য। এমন কোন ফেডারেল আইন বা ছাতা আইন নেই যা ক্ষতিগ্রস্তদের পক্ষে কাজ করতে পারে যা বিশেষভাবে বলে যে দাম্পত্য সহিংসতা
একটি অপরাধ। দাম্পত্য সহিংসতার বিষয়ে কোন সংযোজক, সুসংহত ও সমন্বিত পন্থা নেই। ভুক্তভোগীদের জন্য আমরা
কী করতে পারি, কীভাবে আমরা চক্রটি বন্ধ করতে পারি এবং লিঙ্গ সমতাকে উন্নীত করতে পারি তার কোন বৈশ্বিক
দৃষ্টিভঙ্গি নেই।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরিস্থিতি – VAW আইন, ১৯৯৪
“বিলে তিনটি বিস্তৃত, কিন্তু সহজ, লক্ষ্য রয়েছে : মহিলাদের জন্য রাস্তাগুলিকে নিরাপদ করা; মহিলাদের জন্য ঘর নিরাপদ
করতে ; এবং নারীদের নাগরিক অধিকার রক্ষা করতে ,” জোসেফ আর. বিডেন জুনিয়র, ডেলাওয়্যার সিনেটর, ১৯৯০।
নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা আইন হল একটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল আইন যা ১৩ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৪-এ রাষ্ট্রপতি বিল
ক্লিনটন দ্বারা স্বাক্ষরিত হয়েছে ৷ এই আইনের অধীনে , প্রতিরোধ কর্মসূচী , আশ্রয়কেন্দ্র এবং মহিলাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা অনসুরণকরণ গবেষণায় $৭ বিলিয়ন ডলারের বেশি ফেডারেল অনুদান দেওয়া হয়েছে ৷
আইনটি ন্যাশনাল ডমেস্টিক ভায়োলেন্স হটলাইন, বিচার বিভাগের মধ্যে মহিলাদের বিরুদ্ধে সহিংসতার অফিস এবং
লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতার বিষয়ে ভিকটিম অ্যাডভোকেট, পুলিশ অফিসার, প্রসিকিউটর এবং বিচারকদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য অগণিত প্রোগ্রাম প্রতিষ্ঠা করেছে ।
মার্কিন বিচার বিভাগের মতে, ১৯৯৩ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত অন্তরঙ্গ-সঙ্গী সহিংসতার সামগ্রিক হার ৬৪% কমেছে , এটি
VAWA-কে দায়ী করে ।
নারীর প্রতি অনিয়ন্ত্রিত সহিংসতার প্রভাব এবং সামাজিক প্রতিক্রিয়া অনেক গবেষণায় দাম্পত্য সহিংসতা সংক্রান্ত একটি সূত্রের দিকে ইঙ্গিত করা হয়েছে , এবং “প্রায় ৬০ শতাংশ” গণ গুলি চালানোর ক্ষেত্রে লিঙ্গ বৈষম্য। যেহেতু এই ধরনের সহিংসতা একটি শিক্ষিত আচরণ, তাই এর সংস্পর্শে আসা শিশুদের ক্ষেত্রেও এর প্রবল প্রভাব রয়েছে । কিছু শিশু অপব্যবহারের প্রতি প্রতিরোধী হতে পারে কিন্তু অন্যরা এতে প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে , ভাবতে পারে যে এই ধরনের আচরণ ‘স্বাভাবিক’ এবং পরে তা অনকুরণ বা সহ্য করে ।আমাদের সর্বোত্তম স্বার্থেই লিঙ্গ ভিত্তিক এই সহিংসতাকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মোকাবেলা করা দরকার যাতে এটি ছড়িয়ে পড়া রোধ করা যায় এবং শিকলটি ভাঙতে পারে ।

মূলত ১৩ জলুাই, ২০২০-এ দ্য ক্রাইম রিপোর্টে প্রকাশিত:
https://thecrimereport.org/2020/07/13/the-link-between-mass-shooters-and-domestic-violen