এমপির বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করা তরুণীর আদালতে আত্মহত্যা

এমপির বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করা ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের এক তরুণী দেশটির সুপ্রিমকোর্টের বাইরে ফেসবুক লাইভে এসে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আত্মহত্যা করেছেন।

এ সময় তার এক বন্ধুও তার সঙ্গে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আত্মহত্যা করেন।  খবর এনডিটিভির।

এমপির বিরুদ্ধে মামলা করায় তাদের বিরুদ্ধে এমপির ভাই মিথ্যা মামলা করার প্রতিবাদে গত ১৬ আগস্ট দিল্লিতে সুপ্রিমকোর্টের সামনে তারা ফেসবুক লাইভে এসে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন।

এ সময় পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে দিল্লির রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালে ভর্তি করে। এমপির বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা করা ২৪ বছরের ওই নারীর শরীরের ৮৫ শতাংশ এবং তার ২৭ বছর বয়সি ছেলে বন্ধুর শরীরের ৬৫ শতাংশ পুড়ে যায়।

হাসপাতালে এক সপ্তাহ পর গত শনিবার চিকিৎসাধীন মারা যান ওই তরুণীর বন্ধু। তার পর দিন রোববার ওই তরুণীও মারা যান।
 
পুলিশ জানায়, উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের পূর্বাঞ্চলীয় জেলা বারানসির স্থানীয় রাজনৈতিক দল বিএসপির এমপি আতুল রাজের বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের মে মাসে মামলা করেন ওই তরুণী।
 
মামলার এক মাস পর ওই এমপি থানায় আত্মসমর্পণ করলে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

এ ঘটনার পর ২০২০ সালের নভেম্বরে ওই এমপির ভাই ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় প্রতারণার মামলা করেন।

এ বছরের আগস্টের প্রথম সপ্তাহে ওই তরুণীর বিরুদ্ধে আদালত জামিন অযোগ্য গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। এ ঘটনার প্রতিবাদেই তার ছেলে বন্ধুকে নিয়ে ফেসবুক লাইভে এসে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন।