টরন্টোতে ‘নবাবী ভোজ’

ভোরের আলো রিপোর্ট: কানাডার টরন্টোর ব্যস্ততম এলাকা পোর্ট ইউনিয়ন।
সেই পোর্ট ইউনিয়নের এডামস পার্কে বাংলা-বিহার ও উড়িষ্যার নবাবদের
মিলনমেলা বসেছিল গত ২৬ শে জুন। সেই মেলায় আসা নবাবদের
পোশাক, চাল চলন, কথাবার্তা বলার ভঙ্গিতে ছিল আভিজাত্যের ছাপ।
বাংলাদেশি-কানাডিয়ান পরিচয় ছাপিয়ে সবাই নবাব হয়ে যান। এদিন
নবাবদের বেগমরা সেবাযত্নে কার্পন্য করেননি। রুহ আফজা, শরবত ও
নানা পদের খাবার নবাবরা চাওয়া মাত্রই তাদের সামনে হাজির হয়েছে।
এদিন সকাল ১০টা থেকেই নবাব ও বেগমদের পদচারনায় মুখর হয়ে উঠে
এডামস পার্কটি। বাংলাদেশি ফুড লাভারস ইন কানাডা নামে একটি
সংগঠনের আয়োজনে ভিন্ন ধরনের এমন ‘নবাবী ভোজ’ এর আয়োজন
করা হয়। সংগঠনটির প্রাণ নার্গিস সুলতানা অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে
‘নবাবী ভোজ’টি সফল করে সমালোচকদের মুখে চুনকালি দেন। নবাবী
ভোজ নামের নাস্তার টেবিলে সুশৃঙ্খলভাবে সাজানো ছিল বাহারি টাইপের
প্লেট, গ্লাসসহ নানা কিছু। খাবারে ছিল পুরো নবাবীয়ানার ছাপ। নেহারি,
রুটি, বুন্দিয়া, সব্জিসহ আরও কত কিছু ছিল খাবারের তালিকায়। নার্গিস
সুলতানা নিজে নবাবদের খুশি রাখতে মুরগির রোস্ট রান্না করে আনেন।
ঘুরে ঘুরে ভোজের সব কাজ দেখাশোনা করেন। নবাবী ভোজ এর
আশেপাশের ফটো বুথ ছিল এক অর্থে অসাধারণ। ফটো বুথগুলোতে
নবাবদের থেকে বেগমদের আধিক্যই ছিল বেশি। তারা সেলফি তোলা ও
গল্পবাজিতে এগিয়ে ছিলেন। অন্যদিকে নবাবরা হাতের শক্তি পরীক্ষায় ব্যস্ত
ছিলেন। তবে কোন কোন বেগম নবাবদের খেলার সময় উৎসাহ যোগান।
অনুষ্ঠানের আয়োজন নিয়ে বাংলাদেশি ফুড লাভারস ইন কানাডা’র প্রাণ
নার্গিস সুলতানা জানান, নতুন কিছু অনুষ্ঠান করতে চাই আমরা। সেই
কথা মাথায় রেখেই নবাবী ভোজ- এর আয়োজন। অনুষ্ঠানটি সফল করতে
বাংলাদেশি ফুড লাভারস ইন কানাডা‘র সকল সদস্য অক্লান্ত পরিশ্রম
করেছেন। আমি সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। আগামীতে ভাল কোন অনুষ্ঠান
নিয়ে দেখা হবে।