১৯৭২ সালের ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় পালিয়ে জঙ্গলে ৪১ বছর

এমন এক যুবকের দেখা পাওয়া গেছে, যিনি কিনা টানা ৪১ বছর জঙ্গলে কাটিয়েছেন। তিনি মানবসভ্যতা সম্পর্কে কিছু জানেনই না।

১৯৭২ সালে ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় বাবা প্রাণে বাঁচতে দুই সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন জঙ্গলে। সেই থেকে জঙ্গলে কেটে গেছে হু ভ্যান ল্যাংয়ের। সে কারণে মানবজীবনের অনেক জৈবিক চাহিদার বিষয়ে কোনো ধারণা তৈরি হয়নি তার মধ্যে। এমনকি তিনি যে পুরুষ এবং পৃথিবীতে তার বিপরীত লিঙ্গ নারী রয়েছে; সে ব্যাপারেও তার কোনো ধারণা ছিল না।

২০১৩ সালে উদ্ধার করা হয় ল্যাংকে। স্থানীয় একটি গ্রামে নিয়ে এসে রাখা হয়। তার পর থেকে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক মানবজীবনের সঙ্গে পরিচয় হতে থাকে তার। এত বছর পর কিছুটা মানবসভ্যতার সঙ্গে মানিয়ে নিতে পেরেছেন তিনি। এতদিন পর প্রকাশ্যে এসেছে তার গল্প।

ল্যাংয়ের বাবাকেও উদ্ধারের চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু তিনি আসতে চাননি। তিনি বিশ্বাস করেন, ভিয়েতনামের যুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি। ২০১৫ সালে এই অদ্ভুত পরিবারের কথা প্রথম জানতে পারেন একজন চিত্রগ্রাহক। তিনি যখন ছবি তুলতে যান, তখন তাকে দেখে ভয়ে-আতঙ্কে পালিয়ে গিয়েছিলেন ল্যাং ও তার পরিবারের লোকরা। ধীরে ধীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।