মিশিগানে বাঙালিপাড়ায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ

তোফায়েল রেজা সোহেল, মিশিগান

যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান অঙ্গরাজ্যের হেমট্রামিক, ডেট্রয়েট এবং ওয়ারেন সিটির বাঙালিপাড়ায় বাড়ছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ।

এ রাজ্যে করোনার প্রথম ঢেউয়ে বাংলাদেশিদের মধ্যে আক্রান্তের হার কম থাকলেও এখন দ্বিতীয় ঢেউয়ে এসে ব্যাপকহারে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে।

দ্বিতীয় ঢেউয়ে এখন পর্যন্ত চার বাংলাদেশি মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে তাদের পরিচয় প্রকাশ করেনি পরিবার।

কমিউনিটির নেতারা জানান, দ্বিতীয় ঢেউয়ে অন্তত দুই শতাধিক বাংলাদেশি প্রবাসী কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন।

চিকিৎসকরা বলেছেন, সামাজিক দূরুত্বসহ স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলার কারণে সাম্প্রতিক সময়ে সংক্রমণ বেড়েছে।

জানা গেছে, অনেকে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। অনেকে সংক্রমিত হয়ে হোম আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, ডেট্রয়েট সিটির চেরেস্টে ও হেমট্রামিক সিটির ক্যানিফ ব্লকে বেশ কয়েকটি পরিবার লকডাউনে আছেন। যাদের প্রায় সবাই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। তাদের বেশিরভাগই বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ওয়ারেন সিটির দুজন আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভ্যান্টিলেশনে আছেন। বাঙালি একটি বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে ২৫ জন সংক্রমিত হয়েছেন।

গাড়ির কারখানায় কাজ করা বেশ কয়েকজন বাঙালি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তারা সবাই হেমট্রামিক ও ডেট্রয়েট সিটির বাসিন্দা।

সুমি আক্তার ও জামাল আহমেদ নামে দুজন সুস্থ হয়ে একটি কোম্পানির কাজে যোগ দিয়েছেন। কাজের সন্ধানে নিউইয়র্ক থেকে মিশিগানে অবস্থান নেয়া আত্মীয়স্বজনের মাধ্যমে কেউ কেউ করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রেজিস্টার নার্স শারমিন আক্তার সূচি যুগান্তরকে জানান, কমিউনিটির অনেকে করোনাকে পাত্তা দেননি। তারা স্বাভাবিক চলাফেরা শুরু করেন। এ অবহেলা বা অসতর্কতাই এখন বিপদ হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনা থেকে নিজেকে মুক্ত রাখতে হলে অবশ্যই সচেতন থাকতে হবে।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত একাধিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলেন, কমিউনিটির বিভিন্ন সামাজিক-রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে সামাজিক দূরত্ব মানা হয়নি।

এ ছাড়া ছুটির দিনে রেস্টুরেন্টগুলোতে জটলা বেঁধে আড্ডা দেয়ার কারণে অনেকে অ্যাফক্টেট হয়েছেন। এমনিতে জাতিগতভাবে আমাদের ইউমিন সিস্টেম দুর্বল। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা থাকে।

মিশিগান স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, রাজ্যে এ পর্যন্ত ১ লাখ ৪৫ হাজার করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। সংক্রমিত হয়ে মারা গেছেন ৭ হাজার ১০ জন।

সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ সাড়ে ৯ হাজার। গত ১ সপ্তাহে ১০ হাজার ২৪১ জন সংক্রমিত হয়েছেন। গড়ে প্রতিদিন ১ হাজার ৪৬৩ জন নতুন করে সংক্রমিত হচ্ছেন।

মিশিগান হেলথ অ্যান্ড হসপিটাল অ্যাসোসিয়েশনের সিইও ব্রায়ান পিটার্স গণমাধ্যমকে বলেন, মিশিগানে হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগী ভর্তির সংখ্যা ৮০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।