এমএ হক স্মরণে কানাডা বিএনপি’র ভার্চুয়াল শোক সভা

ভোরের আলো রিপোর্ট: সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের পর সিলেট বিএনপির অভিভাবকতুল্য নেতাদের একজন ছিলেন মোহাম্মদ আব্দুল হক (এম এ হক)। সিলেটে হক ভাই নামে সমধিক পরিচিত তিনি। সেই হক ভাইকে হারিয়ে শোকে মুহ্যমান সিলেট বিএনপি। আমরা এ নেতার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছি। কানাডা বিএনপি এক ভার্চুয়াল শোক সভায় বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা, সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি এম এ হকের স্মরণ সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। আহাদ খন্দকারের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল শোক সভাটি পরিচালনা করেন মমিনুল হক মিলন। এমএ হকের কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে আলোচনায় অংশ নেন মাহবুবুর রব চৌধুরী, রেশাদ চৌধুরীর, মালিহা মনসুর, এজাজ খান, জাকির খান, তপন মাহমুদ, নাজমা হক, মাশরুল হোসেন রিপন, এমএইচ মামুন, মঈন চৌধুরী, জাকারিয়া চৌধুরী, ডা. মো. সিরাজুল হক চৌধুরী, নূরুল ইসলাম, মাহবুব রনি চৌধুরী, মোহাম্মদ শহিদুর রহমানসহ অনেকেই।

এমএ হকের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন

১৯৫৪ সালের ১ জুলাই সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার দেওয়ানবাজারের কুলুমাগ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সঙ্গে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই জড়িত তিনি। ১৯৯৩ সালে তিনি বিএনপির সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নির্বাচিত হন। টানা এক যুগ তিনি সভাপতি হিসেবে সিলেট বিএনপিকে নেতৃত্ব দেন। তিনি ১৯৯৬ সালে বিএনপির সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পান। ওই বছর তিনি সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন। ২০০৩ ও ২০০৮ সালে সিলেট সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে মেয়র পদে চারদলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে লড়েন তিনি।

সর্বশেষ ২০১২ সালে সিলেট মহানগর বিএনপির কোন্দল নিরসনে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তাকে দায়িত্ব দেন। সেসময় মহানগর বিএনপির সভাপতির দায়িত্বও বর্তায় তার কাঁধে। আন্দোলন সংগ্রামে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখার জন্য দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টার গুরুত্বপূর্ণ পদে তাকে রাখা হয়েছিল। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি এই পদে দায়িত্ব পালন করেন।

রাজনীতির পাশাপাশি হক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমেও তিনি মানুষের সেবা করে গেছেন সবসময়।