2020 : কেমন যাবে মন্ট্রিয়লের রিয়েল এস্টেট সেক্টর

লিখেছেন শিহাব উদ্দিন

ক্রমশই সম্প্রসারিত হচ্ছে মন্ট্রিয়ল তথা কুইবেকের রিয়েল এস্টেট সেক্টর| গত চার বছর ধরে বিরামহীনভাবে বেড়ে চলেছে বাড়ী ঘরের দাম। সঙ্গত কারণেই সর্বোচ্চ্ বৃদ্ধি মন্ট্রিয়েলে। কুইবেক রিয়েল এস্টেট বোর্ড সেন্ট্রিসের ত্রৈমাসিক রিপোর্ট অনুযায়ী ২০১৯ এর গ্রেটার মন্ট্রিয়লে বিভিন্ন প্রকারের বাড়ীর গড় বৃদ্ধি হচ্ছে ৬% যার মধ্যে সর্বোচ্চ বেড়েছে মাল্টিপ্লেক্স প্রপার্টি ও কন্ডোতে। এর পরেই আছে সিঙ্গেল প্রোপার্টি|

২০১৯ সালের ৩য় ত্রৈমাসিক রিপোর্ট অনুযায়ী মন্ট্রিয়লের বাড়ীর মিডিয়ান প্রাইস ৫৩২,০২৬ ডলার যা আগের বছরের চেয়ে বাড়ী প্রতি ৩৫ হাজার ডলার বেশী। ২০২০-২২ সালের মিউনিসিপাল রিপোর্ট অনুযায়ী ৩বছরে প্রপার্টির ভ্যালু বৃদ্ধি পেয়েছে ১৫%।এর আগের ত্রিবার্ষিক বৃদ্ধির হার ছিল ৫.৯%| এ রিপোর্ট প্রকাশের পরপরই হঠাৎ করে আরেক দফা বেড়ে যায় প্রপার্টির মার্কেট ভ্যালু যা পরবর্তী মাসিক রিপোর্ট গুলিতে স্পষ্ট হয়।

অন্যদিকে লাভালেও থেমে নেই বাড়ীর দাম বৃদ্ধি। বেড়েছে সর্বোচ্চ কন্ডোতে। এক বছরে বৃদ্ধির পরিমান ৬.৮%। অন্য প্রপার্টিগুলিতে বৃদ্ধির হার অবশ্য একটু কম।

বাড়ীর দাম বৃদ্ধির সাথে আশঙ্কাজনক হারে কমে যাচ্চ্ছে লিস্টিং। চূড়ান্ত দামে বিক্রির প্রত্যাশায় বিক্রেতারাও সময় নিচ্ছেন। এদিকে ক্রমবর্ধমান লোকসংখ্যার তুলনায় অপ্রতুল নতুন বাড়ী নির্মাণ, ডেমোগ্রাফিক পরিবর্তন, গড় আয়ুষ্কাল বৃদ্ধি প্রভৃতি বিষয়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছেনা নতুন বাড়ীর যোগান। ফলে চাহিদা ও যোগানের মধ্যে বিদ্যমান অসামাঞ্জস্যতা প্রকট থেকে প্রকটতর হচ্ছে। তার উপর মার্কেটে রয়েছে নগদ অর্থ নিয়ে চীন থেকে আসা ইমিগ্রেন্টদের চাপ। এক পায়ে দাঁড়িয়ে আছে কখন একটি নিখুঁত বাড়ী লিস্টিংয়ে আসে এই অপেক্ষায়। এমনকি বাড়ী বাড়ী গিয়ে নগদ অর্থে  বাড়ী কেনার প্রতিশ্রুতি দিয়ে লিফলেট দিচ্ছে, প্রতিশ্রুতি দিচ্চে ইন্সপেকশন লাগবে না, ধরতে হবেনা ব্রোকার। ফলে মার্কেটে আসার সাথে সাথে একাধিক অফার পড়তেছে অপেক্ষাকৃত নিখুঁত বাড়িগুলির লিস্টিংয়ে। ফলশ্রুতিতে সহসাই মার্কেট ভ্যালুর চেয়ে অনেক উর্ধে বিক্রি হচ্ছে বাড়ী।

স্বভাবতই চাপ পড়ছে ওয়ার্কিং ক্লাস জনগণের উপর। তিন মাস, ছয় মাস এমনকি এক বছর ধরে প্রস্তুতি নিয়ে আছেন বাড়ী কেনার আশায়। কিন্তু হয়ে উঠছে না। Rosement এলাকায় গত এক বছরে ৩৫% বাড়ী আস্কিং প্রাইসের চেয়ে বেশী পাইসে বিক্রি হয়েছে। ওভার প্রাইসে বিক্রি শুধু রোজমেন্ট এলাকায় নয়, মন্ট্রিয়ল আইল্যান্ড এবং পার্শ্ববর্তী সব শহরেই কম বেশী একই অবস্থা।

কত প্রাইসে ক্রেতা অফার প্রেজেন্ট করবেন, কত হাজার ডলারে পাওয়া যাবে বাড়ী, এই চিন্তায় অস্থির ক্রেতা এবং তার ব্রোকার।

তাহলে কত দিন ধরে চলবে এই সমস্যা? এর কোনো যথাযথ উত্তর নেই। রিয়েল এস্টেট এসোসিয়েশন অব কানাডা’র রিপোর্ট অনুযায়ী ২০২০ সালে কানাডায় প্রপার্টির দাম বৃদ্ধি পাবে ৩.৩% যার মধ্যে সর্বোচ্চ হবে বৃহত্তর মন্ট্রিয়লে। প্রজেকশন অনুযায়ী মন্ট্রিয়লে প্রপার্টির দাম বাড়বে ৫.৫%, তারপরেই টরোন্টোর স্থান। টরন্টোতে বৃদ্ধি পাবে ৪.৭৫%। ভ্যাংকুয়েবার ও ক্যালগারীতে উভয় সিটিতে এই বৃদ্ধির হার ১.৫%। রিয়েল এস্টেট পরিসংখ্যান অনুযায়ী সংখ্যালঘু সরকারের সময় রিয়েল এস্টেটে চাঙ্গা ভাব বিরাজ করে।

বাড়ীর দামে লাগাম ধরে রাখার মতো কোনো প্রক্রিয়া বা কারণ আপাতত দৃষ্টিতে আসছে না। ব্যাপক চাহিদা মেটাতে গ্রেটার মন্ট্রিয়লের সব দিকেই নতুন বাড়ী, কন্ডো নির্মিত হচ্ছে। কিন্তু তারপরও সেটা মার্কেটের স্থিতিশীলতার জন্য যথেষ্টই নয়। ইতিবাচক অর্থনৈতিক সূচক, শক্তিশালী স্ট্যাবল চাকরির বাজার, সুদের স্থির ও নিম্ন হার ,  নতুন ক্রেতাদের ক্ষেত্রে  ফেডারেল গভর্নমেন্টের ৫-১০% প্রণোদনা এবং গ্রেটার মন্ট্রিয়লে ইমিগ্রেন্টদের সংখ্যা বৃদ্ধি ই বাড়ীর বাজারের বর্তমান অবস্থার কারণ। আর এর প্রভাব আগামী বছর যে অব্যাহত থাকবে তা বলার অপেক্ষা রাখেন না।

 

 

লেখক : প্রকৌশলী শিহাব উদ্দিন,  রিয়েল এস্টেট ব্রোকার