বাংলাদেশি নিহত হওয়ার ঘটনায় কলকাতার আদালতে অভিযোগপত্র

কলকাতার শেক্সপিয়ার সরণিতে দুই জন বাংলাদেশি পর্যটক গাড়ি চাপায় নিহত হওয়ার ঘটনার ৩৩ দিন পর অভিযোগপত্র দাখিল করেছে কলকাতা পুলিশ। বুধবার বিকেলে কলকাতার ব্যাঙ্কশাল কোর্টে শেক্সপিয়ার থানার পুলিশ এই অভিযোগপত্রে অনিচ্ছাকৃত খুনের অভিযোগসহ আরও বেশ কয়েকটি ধারায় জাগুয়ার গাড়ির চালক রাঘিব পারভেজের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়।

রাঘিব বর্তমানের কারাগারে রয়েছে। তবে ঘটনার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তার হওয়া রাঘিবের ভোট ভাই আরসালান পারভেজ ও মামা মহম্মদ হামজা জামিনে যুক্ত রয়েছেন।

১৭ আগস্ট রাতে বৃষ্টি থেকে বাঁচতে শেক্সপ্রিয়ার সরণির চার রাস্তার মোড়ে অবস্থিতি একটি ট্রাফিক গার্ডের শেডের নিচে দাঁড়িয়েছিলেন কলকাতায় চোখের চিকিৎসা করাতে আসা মাইনুল আলাম ও প্রথমবারের মতো বেড়াতে আসা ফারহানা ইসলাম তানিয়া।

ঠিক তখনই আচমকা একটি জাগুয়ার গাড়ি সজোরে ধাক্কা দেয় বিপরীত দিক থেকে যাওয়া একটি মার্সিডিজ বেঞ্জ গাড়িকে। ওই গাড়িটি আবার ট্রাফিক পুলিশের গার্ডে গিয়ে ধাক্কা লাগে এবং সেটা ভেঙে চাপা পড়েন মাইনুল ও তানিয়া। ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

ওই ঘটনার পর কলকাতার পুলিশ তদন্ত শুরু করলে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে কলকাতার বিখ্যাত একটি বিরিয়ানির রেস্তঁরা আরসালানের মালিক মহম্মদ পারভেজের বড় ছেলে পারভেজ আরসালানকে গ্রেপ্তার করে।

কিন্তু পুলিশ তদন্ত নেমে জানতে পারে আরসালান নন, ওই সময় গাড়ি চালাচ্ছিলেন তারই ভাই রাঘিব পারভেজ। এই ঘটনার পর দুবাই পালিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। পুলিশ তিন দিনের মাথায় তাকেও গ্রেপ্তার করে তদন্ত শুরু করে।

বুধবার পুলিশের দাখিল করা ২০০ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রে ভারতীয় দণ্ডবিধি ৩০৪ ধারা অনিচ্ছাকৃত খুনের অভিযোগ সহ, সরকারি সম্পদ বিনষ্ট করা, তথ্য প্রমাণ লোপাটের চেষ্টা সহ ১২টি ধারা যুক্ত করা হয়।