ঢাকা টু দার্জিলিং – ৫৫ বছর পর আবারো আসছে ট্রেন সার্ভিস!

লিখেছেন ডি সাইফ

এখন মানুষ ভ্রমণ করতে আগ্রহী হয়ে উঠছে। দেশের গণ্ডি ছাপিয়ে দেশের বাইরে আশেপাশের দেশগুলোতেও তুলনামূলক বাজেট ট্যুর দেয়ার সুযোগ থাকায় অনেকেই ঝুঁকছেন সেদিকে। পাশের দেশ ভারতে তো সবচেয়ে পর্যটক যান বাংলাদেশ থেকেই।

ভারতের ভিসা প্রক্রিয়া বর্তমানে তুলনামূলক সহজ হওয়ার কারণে এবং কম খরচে ভ্রমণের সুবিধা থাকায় সম্ভবত বাংলাদেশি পর্যটকদের মধ্যে প্রতিবেশী এই দেশটিতে ভ্রমণের হার বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। এখন তো লোকজন এটা সেটা বাজার করতেও কলকাতা ছোটেন, সেইসঙ্গে ঘোরাঘুরির কাজটাও সেরে নেন ফাঁকতালে।

বাংলাদেশী ভ্রমণপিপাসুদের মধ্যে সবচেয়ে বেশী আকর্ষণ জাগায় ভারতের যে জায়গাগুলো, তাদের মধ্যে দার্জিলিং অন্যতম। পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি থেকে অল্প দূরত্বে অবস্থিত পাহাড়ের ওপরে গড়ে ওঠা ছবির মতো সুন্দর এই শহরটা অনেকের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। অনেক পর্যটকের প্রথমবার ভারত ভ্রমণের হাতেখড়ি হয়েছে দার্জিলিং ঘুরে।

সেই দার্জিলিংয়ে ভ্রমণ এখন বাংলাদেশিদের জন্যে আরো সহজতর হতে চলেছে। নীলফামারীর চিলাহাটি থেকে পশ্চিমবঙ্গের কুচবিহারের হলদিবাড়ি পর্যন্ত ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্ভোধন করা হয়েছে।

১৯৬৫ সালের আগ পর্যন্ত এই রুটে বাংলাদেশ ভারতের রেলপথে যোগাযোগ ছিল। তবে, ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধের পর এই রুটটি বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। প্রায় ৫৫ বছর পর আবারো চিলাহাটি – হলদিবাড়ি পথে রেলপথ হতে যাচ্ছে।

২০২০ এর জুন মাসে এই রেলপথ নির্মাণের কাজ শেষ হবে। দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে এই রেলপথের শুভ উদ্ভোধন ঘোষণা করবেন তখন।

এই পথটি চালু হলে বাংলাদেশিদের জন্যে দার্জিলিং ভ্রমণ সহজতর হবে। ভারতীয় হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি এই রেলপথ সম্পর্কে বলেন, “এই রেলপথ পুনরায় স্থাপনের মাধ্যমে ভারতের দার্জিলিং জেলা নিউ জলপাইগুড়ি থেকে চিলাহাটি,নীলফামারী,সান্তাহার ,পাকশী,দর্শনা হয়ে কোলকাতা ও ঢাকা সরাসরি ট্রেন যোগাযোগ স্থাপন হবে।”

দার্জিলিং ভ্রমণ, কম খরচে দার্জিলিং ভ্রমণ, ভারত ভ্রমণ, শিলিগুড়ি, দার্জিলিং, মিরিক, টয় ট্রেন, ক্যাবল কার

কলকাতা থেকে দার্জিলিং যেতে প্রায় ১৫/১৬ ঘন্টা সময় ব্যয় হয়। চিলাহাটি – হলদিবাড়ি রেলপথ চালু হলে দার্জিলিং যেতে ইচ্ছুক ভ্রমণপিয়াসীদের সময় লাঘব হবে অনেকটা। হলদিবাড়ি থেকে দার্জিলিং অনেকটাই কাছে। তিন থেকে চার ঘন্টায় যাওয়া সম্ভব দার্জিলিংয়ে এই পথ ধরে।

পাসপোর্ট আর প্ল্যান এখন থেকেই করে রাখতে পারেন। পাহাড়ের গায়ে এক কাপ কফি হাতে নিয়ে প্রকৃতির মধ্যে নিজেকে সঁপে দেয়ার সুযোগ আরো সহজ হলো বলে, অপেক্ষা বেশিদিনের নয়…