ডিম কোরমা এবং আমড়া কোরমা

লিখেছেন শামসুন নাহার শিমু

প্রবাসে কিংবা দেশে আজকাল সবাই কমবেশি ইউটিউব থেকে অনেক ধরনের রেসিপি খুব সহজেই পেয়ে যাচ্ছেন। তারপরেও সব রাঁধুনিরই নিজের স্পেশাল কিছু আইটেম থাকে যেগুলি রাঁধতেও যেমন ভালো লাগে, খেতেও অন্যরকম মজা। ঠিক তেমন দুটি মেন্যু নিয়ে গল্প করবো আজ।
আমি মেপে মেপে মসলা ব্যবহার করে রান্না করিনি কোনদিন। তাই রান্নার গল্পে মসলার অনুপাতের চেয়ে ট্রিকস আর রান্নার পদ্ধতি নিয়েই গল্প করতে চাই।
প্রথমেই যে রান্নাটা নিয়ে গল্প করতে যাচ্ছি সেটা হচ্ছে ডিমের কোরমা। সিদ্ধ ডিমের কোরমাই আমরা সাধারণত রান্না করে থাকি সবাই। এটা একটু ভিন্ন। কোরমা রান্নার পদ্ধতিতেই মসলা তৈরি হবে। কিন্তু ডিম টা আগে ভেঁজে স্লাাইস করে নিতে হবে।

ডিম ভাঁজার পদ্ধতিঃ
যে কয়টা ডিম ভাঁজতে চান ভেঙ্গে নিয়ে সাথে মিহি করে অল্প গাজর, পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ (ঝাল পছন্দ করলে), মরিচ না দিতে চাইলে সবুজ ক্যাপ্সিকাম আর অল্প লবণ মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর ফ্রাইপ্যানে খুবই অল্প তেল ব্রাশ করে দিয়ে নিভু আঁচে অল্প করে গোলানো ডিম ছেড়ে একটু সেদ্ধ হলেই রোল করা শুরু করতে হবে, এক্ষেত্রে দুইটা স্পুন/খুন্তি ব্যবহার করা ভালো। রোল একটু মোটা করে ভেঁজে ছবিতে দেখানো শেপের মত করে কেটে নিলেই রেডি। এর পর কোর্মা রান্নার মত করে মসলা ভুনা করে স্লাইস ডিম গুলি দিয়ে নামিয়ে নিন। পোলাও বা কোর্মার সাথে খেতে দারুন। দেখতেও অন্যরকম।


এরপর আসি আমড়ার কোরমা রান্নার পদ্ধতি নিয়ে কথা বলতে। এই কোরমা রান্নায় আমি লিকুইড ক্রিম আর নারিকেল দুধের পাউডার দিয়ে মসলা (পেঁয়াজ, রসুন, আদা, দারচিনি, এলাচ, জিরা) ভুনা করে খোসা ছাড়িয়ে রাখা আমড়া দিয়ে দেই। মসলা কিছুক্ষণ ভুনা করে গরম পানি দিয়ে আমড়া সিদ্ধ হয়ে গেলে একটু চিনি দিয়ে নামিয়ে নিলেই রেডি হয়ে গেলো আমড়ার কোরমা।